1. tipsmaster247@gmail.com : aman :
  2. spapon116@gmail.com : jamunar-barta :
  3. gm.amanullah2021@gmail.com : Md Murad : Md Murad
  4. mamunshekh432@gmail.com : reporter :
  5. sawontheboss4@gmail.com : Toufiq Hassan : Toufiq Hassan
টা'কা ভা'গা'ভা'গি নি'য়ে অ'ধ্য'ক্ষকে ‘পে'টা'লে'ন’ রা'বি শি'ক্ষ'ক
শুক্রবার, ১৯ অগাস্ট ২০২২, ০৪:২১ অপরাহ্ন

টা’কা ভা’গা’ভা’গি নি’য়ে অ’ধ্য’ক্ষকে ‘পে’টা’লে’ন’ রা’বি শি’ক্ষ’ক

Jamuna Desk Reporter
  • Update Time : বৃহস্পতিবার, ৯ সেপ্টেম্বর, ২০২১
  • ১৭৮ Time View

ভর্তি ফরম বিক্রির টাকা ‘ভাগাভাগি’ নিয়ে দ্বন্দ্বের জেরে রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের (রাবি) শিক্ষক এফ এম আলী হায়দারের বিরু'দ্ধে বিশ্ববিদ্যালয়ের অধিভুক্ত রাজশাহী ইনস্টিটিউট অব বায়োসায়েন্সের অধ্যক্ষ হাফিজুর রহমানকে মা'রধরের অ'ভিযোগ উঠেছে।

এ ঘটনায় ম'ঙ্গলবার (৭ সেপ্টেম্বর) বিকেল ৩টার দিকে রাজশাহী মহানগরীর মতিহার থানায় লিখিত অ'ভিযোগ করেছেন অধ্যক্ষ হাফিজুর রহমান। অ'ভিযোগে তিনি দাবি করেন, ঘটনার সময়ে এফ এম আলী হায়দার ও তার সহযোগীরা ইনস্টিটিউটের নথিপত্র ও ভর্তি ফরম বিক্রির সাড়ে তিন লাখ টাকা ছিন'িয়ে নেন। তবে বায়োসায়েন্স ইনস্টিটিউটের অধ্যক্ষের অ'ভিযোগটি এখনো মা'মলা হিসেবে গ্রহণ করা হয়নি বলে জানিয়েছেন মতিহার থানার ওসি।

অ'ভিযুক্ত এফ এম আলী হায়দার রাবির উদ্ভিদবিজ্ঞান বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক। তিনি বিশ্ববিদ্যালয়ের অধিভুক্ত বায়োসায়েন্স ইনস্টিটিউটের একজন অংশীদার।এদিকে, থানায় দেওয়া লিখিত অ'ভিযোগে অধ্যক্ষ হাফিজুর রহমান উল্লেখ করেছেন, ম'ঙ্গলবার (৭ সেপ্টেম্বর) দুপুর আড়াইটার দিকে এফ এম আলী হায়দার ও নাটোরের সিংড়ার মুকুলসহ চার-পাঁচজন বহিরাগত ইনস্টিটিউটে প্রবেশ করেন। ওই সময় ইনস্টিটিউটের

সেমিনার কক্ষে পরিচালনা পর্ষদের সভা চলছিল। সেখানে অনধিকার প্রবেশ করে রেজুলেশন বইসহ বিভিন্ন গু'রুত্বপূর্ণ নথি ছিন'িয়ে নেন।‘এতে বাধা দিলে তারা (আলী হায়দার ও তার সহযোগীরা) ইনস্টিটিউটের পরিচালকদের সামনেই অধ্যক্ষ হাফিজুর রহমানকে এলোপাতাড়ি কিল-ঘু'ষি মেরে আ'হত করেন। এসময় তারা অধ্যক্ষকে অ’শ্লী'ল ভাষায় গা'লিগা'লা'জ ও প্রাণনাশের হু’মকি দেন’ বলে অ'ভিযোগে উল্লেখ করা হয়।

এতে আরও বলা হয়, আ'ত্মর'ক্ষার্থে অধ্যক্ষ সেমিনার কক্ষের বাইরে গেলে আ'সামি মুকুলসহ অজ্ঞাতনামা চার-পাঁচজন আবারও অধ্যক্ষের ওপর চড়াও হয়। তারা অধ্যক্ষের শার্টের পকে'টে এবং অফিস থেকে ইনস্টিটিউটের নগদ সাড়ে তিন লাখ টাকা ছিন'িয়ে নেয়।

তবে ইনস্টিটিউটের অধ্যক্ষকে মা'রধর ও টাকা ছিন'িয়ে নেওয়ার অ'ভিযোগ অস্বীকার করেছেন রাবি শিক্ষক এফ এম আলী হায়দার। তিনি বলেন, ‘আমা'র আর্থ্রাইটিসের সমস্যায় ভুগছি, ঠিকমতো চলতে পারি না। আমি কীভাবে ওকে (হাফিজুর রহমান) মা'রধর করবো?’

অধ্যক্ষের বিরু'দ্ধে ভর্তি ফরম বিক্রির টাকা আ'ত্মসাতের পাল্টা অ'ভিযোগ করে তিনি বলেন, ‘ইনস্টিটিউটে ভর্তির জন্য পার্সোনাল (ব্যক্তিগত) বিকাশ অ্যাকাউন্ট থেকে টাকা তুলেছেন তিনি (হাফিজুর)। ভর্তি ফরম বিক্রির মাধ্যমে পাঁচ লাখ টাকার বেশি আয় হলেও হাফিজুর দেখিয়েছেন চার লাখ টাকা। এ টাকার অনিয়ম সম্পর্কে জানতে চাওয়ায় আমাকে ধাক্কা দেওয়া হয়।’

তিনি নিজে ইনস্টিটিউটের পরিচালক এবং বিশ্ববিদ্যালয়ের সিন্ডিকেট তাকে অবৈ'তনিক পরিচালক থাকার অনুমোদন দিয়েছে দাবি করে আলী হায়দার বলেন, ‘হাফিজুর রহমান নিজেকে অধ্যক্ষ হিসেবে দাবি করেছেন। কিন্তু ওই ইনস্টিটিউটের বর্তমান অধ্যক্ষ শামিমা বেগম। হাফিজুর অধ্যক্ষ সেজে পদে বসে আছেন।’

জানতে চাইলে মতিহার থানার ভারপ্রা'প্ত কর্মকর্তা (ওসি) আনোয়ার আলী তুহিন জানান, ‘এ সংক্রা'ন্ত একটি অ'ভিযোগ পেয়েছি। তবে সেটি মা'মলা আকারে রেকর্ড করা হয়নি। বি'ষয়টি ত'দন্ত শেষে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।’ সূত্রঃ jagonews24

Please Share This Post in Your Social Media

Comments are closed.

More News Of This Category
Jamunabarta24 © All rights reserved 2021
Develper By ITSadik.Xyz