1. bappy.ador@yahoo.com : Admin : Admin admin
  2. hostctg@gmail.com : desk report :
  3. sohagkhan8933@gmail.com : editor editor : editor editor
  4. spapon116@gmail.com : jamunar-barta :
  5. mamunshekh432@gmail.com : reporter :
  6. sawontheboss4@gmail.com : Toufiq Hassan : Toufiq Hassan
১৫ ব'ছ'রে'র ছা'ত্রে'র প্রে'মে ৩৫ ব'ছ'রে'র শি'ক্ষি'কা! জে'নে নি'ন ঘ'টনা'টি।
রবিবার, ০৪ ডিসেম্বর ২০২২, ১২:৫৭ পূর্বাহ্ন

১৫ ব’ছ’রে’র ছা’ত্রে’র প্রে’মে ৩৫ ব’ছ’রে’র শি’ক্ষি’কা! জে’নে নি’ন ঘ’টনা’টি।

Jamuna Desk Reporter
  • Update Time : বৃহস্পতিবার, ৯ সেপ্টেম্বর, ২০২১
  • ৩৭৫ Time View

মনে করা হয় বাবা-মা এরপর শিক্ষক-শিক্ষিকার স্থান সবথেকে উপরে। একজন শিক্ষক বা শিক্ষিকা তার ছাত্র বা ছাত্রী কে খুব ভালো করে বুঝতে পারেন। কিভাবে তার ছাত্র বা ছাত্রী কে পড়াশোনার প্রতি আগ্রহ সৃষ্টি করতে হয় তারা তা খুব ভাল করেই বুঝতে পারেন। আমর'া এতদিন গু'রু-শিষ্যের সম্পর্কের কথা জেনে এসেছি।

সেই সম্পর্ক খুবই পবিত্র হয়ে থাকে কিন্তু বর্তমান সময়ে এসে এই সম্পর্কের মধ্যে কালিমালি'প্ত হচ্ছে। কখনো জানা যায় কোন শিক্ষক বা শিক্ষিকা তার ছাত্র বা ছাত্রী কে শারীরিকভাবে নি'র্যাতন করছে। এইসব ঘটনা আমা'দের কানে আসে কখনো ভেবে দেখেছেন এই ঘটনা হয়তো আমা'দের পাশেও হচ্ছে অথচ আমর'া জানতে পারছি না।

 

একজন শিক্ষক বা শিক্ষিকা তার ছাত্র বা ছাত্রীর জীবনের এমন একজন মানুষ হয়ে থাকেন যে তাকে জীবনে চলার পথে এমন অনেক শিক্ষা দেন যা পরবর্তী সময়ে গিয়ে তার কাজে আসে সেই সব শিক্ষার্থী ভিত্তিক না হলেও জীবনের চলার পথে এগু'লো প্রয়োজন পড়ে। আজকে আপনাদের এমন একজনের কথা বলব যে শিক্ষিকা হয়ে তার ছাত্রকে নিজের মন দিয়েছিল।

মন দেওয়া বলা হয় না এটাকে বলতে গেলে তার প্রতি শারীরিক আকর্ষণ সৃষ্টি হয়েছিল। আপনাদের যে কথাটা বলছি সেটা ব্রিটেনের। সেখানকার এক 35 বছরের শিক্ষিকা তার 15 বছরের ছাত্রকে নি'র্যাতন করেছিল। এই ঘটনাটি সামনে আসে যখন ছাত্রটির বয়স 18 হয়। ছাত্রটি তার পরিবারের সাহায্য নিয়ে শিক্ষিকার বিরু'দ্ধে মা'মলা করে।

সেই মা'মলায় শুনানির সময় শিক্ষিকা তার বিরু'দ্ধে করা সমস্ত তথ্য ভুল প্রমাণ করার চেষ্টা করে। উল্টে সে জানায় সে ছাত্রটিকে নি'র্যাতন করেনি সেই ছাত্রটিই বরং তাকে নি'র্যাতন করেছে। ধীরে ধীরে তার সমস্ত কথা মিথ্যে প্রমাণ হওয়া শুরু হয়। প্রত্যক্ষদর্শী হিসেবে তার স্বামীকে আ'দালতে হাজির করা হয়।

তার স্বামী সত্যের পথে না চলে মিথ্যের পাশে দাঁড়ায়। তার স্বামী সরাসরি অস্বীকার করে যে এমন কোন ঘটনা তার স্ত্রী ঘটিয়েছে। অ'পরপক্ষে ছাত্র জানায় তার সাথে জোর করে শারীরিক সম্পর্ক শিক্ষিকা তিনবার করেছে। দুবার তার ষোল বছরের জন্ম'দিনের আগে এবং একবার তাকে জোর করে ক্ষেতে নিয়ে গিয়ে শারীরিকভাবে লি'প্ত হয়।

এমনকি তাকে অনেক অ’শ্লী'ল ছবি ও শিক্ষিকা পাঠাতো। এইসব কথা সে প্রমাণ করতে সক্ষম হওয়ার পরেও শিক্ষিকা তার কথাতেই অনড় থাকে। কিন্তু যত কেস এগোতে থাকে তত তার সমস্ত কথা সত্য প্রমাণ হয় ও শিক্ষিকার সমস্ত কথা মিথ্যে প্রমাণ 'হতে থাকে।

শেষে সত্যেরই জয় হয় আর জানা যায় শিক্ষিকা তার থেকে ছোট 15 বছরের এক নাবালককে জোর করে শারীরিক সম্পর্কে লি'প্ত হয় এবং তাকে অ’শ্লী'ল ছবি পাঠায়। এইসব তথ্য প্রমাণ হলে তার কারা'দ'ণ্ড হয়। নাবালক টি কেসে জিতে গেলেও তার মন থেকে কি এইসব কষ্টের দিন কোনদিনই বুঝতে পারবে আপনাদের কি মনে হয় আমা'দের জানান।।

Please Share This Post in Your Social Media

Comments are closed.

More News Of This Category
Jamunabarta24 © All rights reserved 2021
Develper By ITSadik.Xyz